Home    Source

 
 Home
 Subject Index
 Bukhari Shareef
 Muslim Shareef
 Abu Dawud
 Malik Muwatta
Google
See Arabic as Image 
74) সূরা আল মুদ্দাসসির (মক্কায় অবতীর্ণ), আয়াত সংখ্যা 56
 بِسْمِ اللّهِ الرَّحْمـَنِ الرَّحِيمِ
 শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।
  Ayahs:   | 1-15 | 16-30 | 31-45 | 46-56 |
 
  وَمَا جَعَلْنَا أَصْحَابَ النَّارِ إِلَّا مَلَائِكَةً وَمَا جَعَلْنَا عِدَّتَهُمْ إِلَّا فِتْنَةً لِّلَّذِينَ كَفَرُوا لِيَسْتَيْقِنَ الَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ وَيَزْدَادَ الَّذِينَ آمَنُوا إِيمَانًا وَلَا يَرْتَابَ الَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ وَالْمُؤْمِنُونَ وَلِيَقُولَ الَّذِينَ فِي قُلُوبِهِم مَّرَضٌ وَالْكَافِرُونَ مَاذَا أَرَادَ اللَّهُ بِهَذَا مَثَلًا كَذَلِكَ يُضِلُّ اللَّهُ مَن يَشَاء وَيَهْدِي مَن يَشَاء وَمَا يَعْلَمُ جُنُودَ رَبِّكَ إِلَّا هُوَ وَمَا هِيَ إِلَّا ذِكْرَى لِلْبَشَرِ  (31
আমি জাহান্নামের তত্ত্বাবধায়ক ফেরেশতাই রেখেছি। আমি কাফেরদেরকে পরীক্ষা করার জন্যেই তার এই সংখ্যা করেছি-যাতে কিতাবীরা দৃঢ়বিশ্বাসী হয়, মুমিনদের ঈমান বৃদ্ধি পায় এবং কিতাবীরা ও মুমিনগণ সন্দেহ পোষণ না করে এবং যাতে যাদের অন্তরে রোগ আছে, তারা এবং কাফেররা বলে যে, আল্লাহ এর দ্বারা কি বোঝাতে চেয়েছেন। এমনিভাবে আল্লাহ যাকে ইচ্ছা পথভ্রষ্ট করেন এবং যাকে ইচ্ছা সৎপথে চালান। আপনার পালনকর্তার বাহিনী সম্পর্কে একমাত্র তিনিই জানেন এটা তো মানুষের জন্যে উপদেশ বৈ নয়।  
And We have set none but angels as Guardians of the Fire; and We have fixed their number only as a trial for Unbelievers,- in order that the People of the Book may arrive at certainty, and the Believers may increase in Faith,- and that no doubts may be left for the People of the Book and the Believers, and that those in whose hearts is a disease and the Unbelievers may say, "What symbol doth Allah intend by this ?" Thus doth Allah leave to stray whom He pleaseth, and guide whom He pleaseth: and none can know the forces of thy Lord, except He and this is no other than a warning to mankind.  
 
  كَلَّا وَالْقَمَرِ  (32
কখনই নয়। চন্দ্রের শপথ,  
Nay, verily: By the Moon,  
 
  وَاللَّيْلِ إِذْ أَدْبَرَ  (33
শপথ রাত্রির যখন তার অবসান হয়,  
And by the Night as it retreateth,  
 
  وَالصُّبْحِ إِذَا أَسْفَرَ  (34
শপথ প্রভাতকালের যখন তা আলোকোদ্ভাসিত হয়,  
And by the Dawn as it shineth forth,-  
 
  إِنَّهَا لَإِحْدَى الْكُبَرِ  (35
নিশ্চয় জাহান্নাম গুরুতর বিপদসমূহের অন্যতম,  
This is but one of the mighty (portents),  
 
  نَذِيرًا لِّلْبَشَرِ  (36
মানুষের জন্যে সতর্ককারী।  
A warning to mankind,-  
 
  لِمَن شَاء مِنكُمْ أَن يَتَقَدَّمَ أَوْ يَتَأَخَّرَ  (37
তোমাদের মধ্যে যে সামনে অগ্রসর হয় অথবা পশ্চাতে থাকে।  
To any of you that chooses to press forward, or to follow behind;-  
 
  كُلُّ نَفْسٍ بِمَا كَسَبَتْ رَهِينَةٌ  (38
প্রত্যেক ব্যক্তি তার কৃতকর্মের জন্য দায়ী;  
Every soul will be (held) in pledge for its deeds.  
 
  إِلَّا أَصْحَابَ الْيَمِينِ  (39
কিন্তু ডানদিকস্থরা,  
Except the Companions of the Right Hand.  
 
  فِي جَنَّاتٍ يَتَسَاءلُونَ  (40
তারা থাকবে জান্নাতে এবং পরস্পরে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।  
(They will be) in Gardens (of Delight): they will question each other,  
 
  عَنِ الْمُجْرِمِينَ  (41
অপরাধীদের সম্পর্কে  
And (ask) of the Sinners:  
 
  مَا سَلَكَكُمْ فِي سَقَرَ  (42
বলবেঃ তোমাদেরকে কিসে জাহান্নামে নীত করেছে?  
"What led you into Hell Fire?"  
 
  قَالُوا لَمْ نَكُ مِنَ الْمُصَلِّينَ  (43
তারা বলবেঃ আমরা নামায পড়তাম না,  
They will say: "We were not of those who prayed;  
 
  وَلَمْ نَكُ نُطْعِمُ الْمِسْكِينَ  (44
অভাবগ্রস্তকে আহার্য্য দিতাম না,  
"Nor were we of those who fed the indigent;  
 
  وَكُنَّا نَخُوضُ مَعَ الْخَائِضِينَ  (45
আমরা সমালোচকদের সাথে সমালোচনা করতাম।  
"But we used to talk vanities with vain talkers;  
 
  Ayahs:   | 1-15 | 16-30 | 31-45 | 46-56 |